ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯ ৬ কার্তিক ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর ২০১৯

এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় হাওরে আলো ছড়াচ্ছে
কামরুল হাসান হবিগঞ্জ
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ

দূর থেকে দেখলে মনে হবে বানভাসিদের দুর্যোগকালীন কোনো আশ্রয় শিবির। চারদিকে পানি আর পানি। এর মধ্যেই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে একটি চারতলা ভবন। যেন পানিতে ভাসছে ভবনটি। এই ভবনে যাতায়াতের কোনো রাস্তা নেই। যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নৌকা। দেখতে আশ্রয় শিবির মনে হলেও এটি একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ‘মুরাদপুর এসইএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয়’। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বছরে সাত মাস নৌকায় আর পাঁচ মাস পায়ে হেঁটে স্কুলে আসা-যাওয়া করে।
জানা গেছে, মুরাদপুর এসইএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয়ের নিজস্ব কোনো নৌকা কিংবা রাস্তা নেই। তবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্র্যাকের পক্ষ থেকে গত বছর একটি নৌকা দেওয়া হয়েছে। সীমাবদ্ধতা নিয়েও হাওর এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে বিদ্যালয়টি। ভবনটি দেখতেও দৃৃৃষ্টিনন্দন।
২০১২ সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইএসডিপি)-এর আওতায় সরকারি অর্থায়নে চারতলা ভবনের এই মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি স্থাপন। একই বছরের জানুয়ারি মাস থেকে ১৯০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে পুরোদমে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। চারতলা এই ভবনটিতে রয়েছে ২০টি কক্ষ। বর্তমানে শিক্ষার্থী সংখ্যা পাঁচ শতাধিক।
২০১৩ সালে এই বিদ্যালয় থেকে প্রথম ৪৫ জন শিক্ষার্থী জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এবং ২০১৪ সালে ৪৮ জন শিক্ষার্থী প্রথম এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। তারপর থেকে আর পেছনে ফিরে থাকাতে হয়নি। ২০১৭ সালে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত করে সরকার।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয় ভবনের নিচতলা পুরোটাই খালি, যা বছরের অধিকাংশ সময় হাওরের পানিতে তলিয়ে থাকে। দ্বিতীয়, তৃৃতীয় ও চতুর্থ তলায় শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। হাওরঘেঁষা এই প্রত্যন্ত জনপদে কমপক্ষে ১৫টি গ্রামে আর কোনো মাধ্যমিক বিদ্যালয় না থাকায় স্থানীয় শিক্ষার্থীদের জন্য এটিই হয়ে ওঠে শিক্ষার নির্ভরযোগ্য বিদ্যাপীঠ।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিন জানান, যাতায়াতের জন্য ব্র্যাক থেকে একটি নৌকা দেওয়া হয়েছে। অন্তত দুটি নৌকার ব্যবস্থা করা গেলে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি অনেকটা কমত। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীও বাড়ত।
জেলা শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ রুহুল্ল্যা বলেন, শিক্ষার মানোন্নয়ন ও ফলাফল ভালো করার জন্য জেলার সব মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে ‘মিড ডে মিল’ চালু হয়েছে। এমনকি হাওরাঞ্চলের মুরাদপুর এসইএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয়ও মিড ডে মিলের আওতায়। এতে আশা করি, হাওরাঞ্চলের এই বিদ্যালয়েও শিক্ষার মান আগের তুলনায় ভালো হবে। এই বিদ্যালয়ে শূন্য পদে শিগগিরই শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ।
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]